রোজা রেখে বিপাকে পড়া কৃষকের ধান কেটে দিল নেত্রকোণা জেলা ছাত্রলীগ

মো জসিম উদ্দীন মো জসিম উদ্দীন

কলমাকান্দা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৭:৩৬ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৫, ২০২১

লকডাউন শ্রমিক ও অর্থ সংকটের কারণে ৭২ শতক জমির পাকা ধান কাটতে পারছিলেন নেত্রকোণার কলমাকান্দার উপজেলার কৈলাটি ইউনিয়নের বেনুয়া গ্রামের কৃষক জালাল উদ্দিন । ক্ষেতেই ধান নষ্ট হওয়ার উপক্রম হচ্ছিল। খবর পেয়ে জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রবিউল আওয়াল শাওন সহ কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে ছুটে যান তাকে সাহায্য করতে।

উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের ছাত্রলীগের নেতাকর্মী নিয়ে ২৫ শে এপ্রিল (রবিবার) সকালে থেকে কৃষক জালাল উদ্দীন এর ৭২ শতক জমির ধান কেটে বাড়িতে তুলে মাড়াই করে দেন তারা। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কৃষকের ক্ষেতের ধান কাটতে দেখে প্রশংসায় ভাসাচ্ছেন সচেতনমহলসহ স্থানীয়রা। কৃষক জালাল উদ্দীন আপ্লুত হয়ে তাদের প্রশংসা করেন।

এ সময় তিনি বলেন, লকডাউনের মধ্যে ধান কাটার উপযুক্ত হয়। লকডাউনে শ্রমিক সংকটের কারণে পাকাধান কাটতে পারছিলাম না। এছাড়া এলাকায় যে শ্রমিক পাওয়া যায় তাদের মজুরি খুব বেশি। ক্ষেতের ধান পাকার পরও তা কাটতে না পারায় কিছুটা ক্ষতির শঙ্কায় ছিলাম। আমার এমন অসহায়ত্বের কথা শুনে ছাত্রলীগ নেতা রবিউল আওয়াল শাওন সহ জেলা ছাত্রলীগ (সদস্য) এস এম ফরহাদ হোসেন, মামুনূর রশি টিপু, ইয়াসিনূর আলম খান, শেখ ফারদিন, খালেদ হাসান অপু, সজীব সাহা, মো তানভীর আহমেদ, এবং উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা সাখাওয়াত হোসেন সাজ্জাত, টিপু সুলতান, রাজন, মোজাম্মেল, নাছিম মিয়া, প্রমুখ্যদের সাথে নিয়ে আমার ক্ষেতের ধান কেটে দেন। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা যেভাবে আমার ধান কাটতে সাহায্য করেছেন তা কখনো ভুলব না।

ছাত্রলীগ নেতা রবিউল আওয়াল শাওন বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি আল- নাহিয়াল খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্রাচার্য্য এর নির্দেশনায় অসহায় ও দরিদ্র কৃষকদের ধান কেটে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেই। কৃষক জালাল উদ্দীন ৭২ শতক জমির পাকা ধান কাটতে না পেরে বিপাকে পড়েন। তার অসহায়ত্বের কথা শুনে ছাত্রলীগের জেলা ও স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে তার ধান কেটে দিয়ে ও মাড়াই করে দিয়েছি । এ সংকটকালে প্রয়োজনে এমন অসহায়দের ধান আরো কেটে দেয়া হবে।