জীবন বীমা কর্পোরেশনের নেত্রকোনা সেলস অফিসে ব্যবসায় পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: ৮:৫০ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২১

নেত্রকোণা প্রতিনিধিঃ

” মুজিব বর্ষের অঙ্গিকার বীমা হোক সবার” এ স্লোগান কে সামনে রেখে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার আর্থিক প্রতিষ্ঠান , অর্থ মন্ত্রণালয়ের অধিনে এটা একমাত্র রাষ্ট্রীয় জীবন বীমা প্রতিষ্ঠান।

গতকাল (২৯ সেপ্টেম্বর) বুধবার সকাল ১০টাই জীবন বীমা কর্পোরেশন নেত্রকোণা জেলা সেলস অফিস – ৩৯ এ ব্যবসায় পর্যালোচনা ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। আয়োজিত অনুষ্ঠানে ব্যবসায় পর্যালোচনা ও মতবিনিময় করা হয়।

এ সভার সভাপতিত্ব করেন, নেত্রকোণার সেলস অফিস – ৩৯ শাখার ইনর্চাজ আল আমিন। এসময় তিনি বলেন, মানুষের জীবন, স্বাস্থ্য ও সম্পদের ঝুঁকি আবহমানকালের।

প্রাচীনকাল থেকেই মানুষ ক্ষয়ক্ষতি, দুর্যোগ, দুর্ঘটনা মোকাবিলা করে আসছে। ভবিষ্যতে কী ঘটবে, তার নিশ্চয়তা নেই। এ জন্য মানুষ চায় নিরাপত্তা ও ঝুঁকি মোকাবিলা ও নিরাপত্তার জন্য ১৩০০ শতক থেকে বীমার প্রচলন শুরু হয়। ভারতবর্ষে প্রাতিষ্ঠানিক বীমা শুরু হয় ১৮১৮ সালে।

সময়ের বিবর্তন ও জীবনযাপনে নতুন নতুন অনুষঙ্গ যত যুক্ত হয়েছে, বীমার ভঙ্গিতেও এসেছে পরিবর্তন। মোটাদাগে বীমা দুই ধরনের। প্রথমটি জীবন বীমা, দ্বিতীয়টি সাধারণ বীমা।

জীবন বীমাকে ভবিষ্যতের বন্ধু বলা হয়। একই সঙ্গে এটি সঞ্চয়ের সুযোগ সৃষ্টি করে। তাই দুনিয়াজুড়ে দিন দিন জীবন বীমার চাহিদা বাড়ছে। জীবন বীমা অনেক ধরনেরই হতে পারে। যেমন দুর্ঘটনা ও চিকিৎসাজনিত বীমা, সন্তানের শিক্ষার জন্য বীমা, অবসরগ্রহণজনিত বীমা ইত্যাদি।

এসময় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, ময়মনসিংহ রিজিওনাল ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার লিয়াকত আলী খান, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ময়মনসিংহ রিজিওনাল উন্নয়ন শাখার ম্যানেজার মোঃ কামরুল আলম, আরো উপস্থিত ছিলেন উন্নয়ন ম্যানেজার মোঃ আনোয়ার হোসেন, এবং সকল ডি এম ইনচার্জ ও সকল ডেভেলপমেন্ট অফিসার সহ সকল এজেন্ট বৃন্দ ।

উপস্থিত নেত্রকোণা সেলস-৩৯ শাখার উপস্থিতিদের পরিচয় পর্ব শুরুর মধ্যে দিয়ে আলোচনা শুরু করেন।

এ সময় বক্তারা বলেন, জীবন বীমা কেন প্রয়োজন? আপনার মৃত্যুতে বা বীমার মেয়াদ পর্যন্ত বেঁচে থাকলে আপনাকে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ প্রদানের প্রতিশ্রুতি দেয়ার মাধ্যমে জীবন বীমা আপনার পরিবারের আর্থিক সুরক্ষা নিশ্চিত করে।

তার পর জীবন বীমা কর্পোরেশনের ব্যবসায় বিভিন্ন দিক এবং বীমার ব‍্যবসা বাড়ানো, বিভিন্ন বিষয় ট্রেনিং করা, এ বছর টার্গেট পূর্ণ ইত্যাদি বিষয় নিয়ে পর্যালোচনা করা হয়।