নেত্রকোনার বেদেনা আমিন সফল জননী মনোনীত হলেন

প্রকাশিত: ৬:০৪ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১২, ২০২১

জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’ শীর্ষক কার্যক্রমের আওতায় ‘সফল জননী’ ক্যাটাগরিতে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সফল জননী মনোনীত হয়েছেন পাহাড়ি সীমান্ত ঘেঁষা নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার বরুয়াকোনা গ্রামের বাসিন্দা মোসা. বেদেনা আমিন। তার স্বামী মরহুম হাজী ইব্রাহিম আমিন ছিলেন ধর্মপ্রাণ, সমাজসেবক ও ধনাঢ্য ব্যক্তি।

রোকেয়া দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (৯ ডিসেম্বর) জেলা প্রশাসন এবং নারী ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত ‘জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’ এর সম্মাননা দেওয়া হবে। এদিন ভার্চুয়ালি ৮০ বছর বয়সী আলোকিত নারী বেদেনা আমিনকে এ সম্মামনা জানানো হবে।

জানা গেছে, সফল এ জননী নিজে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করতে পারলেও সন্তানদের করেছেন সর্বোচ্চ ডিগ্রিধারী এবং পড়িয়েছেন দেশ সেরা বিদ্যাপীঠে। সার্টিফিকেট না থাকলেও মনের আলোয় শিক্ষিত নারী বেদেনা আমিন। দুর্গম পাহাড়ি জনপদ, নানা সামাজিক প্রতিবন্ধকতা, অপ্রতুল শিক্ষাব্যবস্থার মধ্যেও সন্তানদের করে তুলেছেন শিক্ষিত ও সমাজে সুপ্রতিষ্ঠিত।

১০ সন্তানের সংসার সামলে তাদের নিয়ম করে স্কুলে পাঠাতেন এবং দেশের নামকরা বিদ্যাপীঠে পড়ার উৎসাহ যোগাতেন। স্কুল পেরিয়ে কলেজের সময় হলে আশপাশে না পড়িয়ে ঢাকায় পাঠিয়েছেন সন্তানদের। তার অনুপ্রেরণায় ছোট তিন ছেলে-মেয়ে দেশ সেরা নটর ডেম কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) পড়ার সুযোগ পান। তিনি সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের উদাহরণ টেনে সন্তানদের উৎসাহ দিতেন। বর্তমানে তার সন্তানেরা সুনামের সঙ্গে সরকারি চাকরিতে নিয়োজিত। শুধু তাই নয়, সন্তানদের বিয়ের ব্যাপারেও শিক্ষাগত যোগ্যতাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিতেন তিনি। প্রায় সব ছেলের বউ এবং মেয়ে জামাই সরকারি চাকরিজীবী।

অত্যন্ত কোমল স্বভাবের মানবিক গুণাবলী সম্পন্ন এ শিক্ষানুরাগী সন্তানদের পাশাপাশি প্রতিবেশী ছাত্রছাত্রীদেরও পরীক্ষার ফি-সহ নানাভাবে আর্থিক সহায়তা করে পড়ালেখার প্রতি তাদের উৎসাহ যোগাতেন। পড়ালেখায় ক্লাসে কেউ প্রথম হলে তার বাড়ি গিয়ে অনুপ্রেরণা দিতেন ও অভিভাবকদের বুঝাতেন যেন পড়ালেখা নিয়মিত চালিয়ে যায়।

শুধু সন্তানই নয়, নাত-নাতির উচ্চশিক্ষার ব্যাপারে সজাগ এ নারী। তার দেখানো পথ অনুসরণ করে নাতি-নাতনির মধ্যে দুইজন ঢাবিতে, একজন জগন্নাথে, একজন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে, একজন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে, একজন বেসরকারি নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ে, একজন ইডেন, একজন ঢাকা কলেজসহ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত। নিজে পড়ালেখা করতে না পারলে কষ্ট করে সন্তানদের শিক্ষিত করাই মা হিসেবে তার সফল স্বার্থকতা।

এখানে সম্রাট নেপোলিয়ন বোনাপার্টের অমর বাণী স্বার্থকতা পেয়েছে। নেপোলিয়ন বলেছিলেন, ‘আমাকে একজন শিক্ষিত মা দাও, আমি তোমাদের একটি শিক্ষিত জাতি দেবো।’ সমাজের প্রতিটি মা হোক বেদেনা আমিনের মতো শিক্ষানুরাগী।

সূত্রঃ জাগো নিউজ